সিটিজেন আইডি ও ইউপি ট্যাক্স যাচাই

সুবিধাসমূহ

অনলাইনে আবেদন ও সনদ যাচাই

সনদ বাংলা ও ইংরেজী প্রদান

সকল সনদ স্টোরেজ সুবিধা

সনদ তৈরীর এসএমএস প্রেরণ

মোবাইল অ্যাপসের মাধ্যমে আবেদন ও সনদ যাচাই

বিশ্বের যে কোনো স্থান থেকে আবেদন ও সনদ যাচাই


প্রত্যয়নপত্র যাচাই সুবিধা

ওয়ার্ড ভিত্তিক হোল্ডিং ট্যাক্স ব্যবস্থাপনা ও রিপোর্ট তৈরী

মেয়াদ উত্তীর্ণ ট্রেড লাইসেন্স
৩০ জুনের পর গ্রাহকের নিকট এসএমএস প্রেরণ ব্যবস্থা

সনদ হারিয়ে বা নষ্ট হলে অনলাইনে সহজে আবেদন ও সুবিধা প্রাপ্তি

রেজিস্টার , আয় -ব্যয় , অডিট রিপোর্ট তৈরী ব্যবস্থাপনা

সরকারের ডিজিটাল আর্কিটেকচার উপযোগী এবং উন্নত ডিজিটাল নিরাপত্তা ব্যবস্থা ও তথ্যের গোপনীয়তা রক্ষা

ঢাকা স্থানীয় সরকার প্রশাসন

২০৪১ সালের মধ্যে ‘স্মার্ট বাংলাদেশ’ গড়ার লক্ষ্য নিয়েছে সরকার। ইতিমধ্যে এ নিয়ে কাজ শুরু করেছে সরকার। এ নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে ‘স্মার্ট বাংলাদেশ টাস্কফোর্স’ গঠনের পর এই টাস্কফোর্সের একটি নির্বাহী কমিটিও গঠন করা হয়েছে। যারা, ‘স্মার্ট বাংলাদেশ ২০৪১’ প্রতিষ্ঠার জন্য নীতিনির্ধারণী সিদ্ধান্ত গ্রহণ ও বাস্তবায়নে সুপারিশ দেবে।
ইউনিয়ন পরিষদ দেশের প্রাচীনতম স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠান। এটি তৃনমুল পর্যায়ে জনগণের সবচেয়ে কাছের সরকার। ২০১০ সাল থেকেই মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সারাদেশের সকল ইউনিয়ন পরিষদের ডিজিটাল কার্যক্রমের উদ্যোগ গ্রহণ করেন। ইউনিয়ন পরিষদকে ডিজিটালাইজড করণের মাধ্যমে একটি শক্তিশালী প্রতিষ্ঠানে পরিনত করতে ২০৪১ সালের মধ্যে একটি তথ্য ও জ্ঞান-ভিত্তিক দেশ প্রতিষ্ঠায় যথাযথ ভূমিকা রাখতে পারে।

ইউনিয়ন পরিষদ সেবা ব্যবস্থাপনা, ঢাকা

জনগণের প্রয়োজনের তাগিতে প্রায়সময়ই স্থানীয় সরকার বিভাগের অধীনে (ইউনিয়ন পরিষদ) থেকে অনেক গুরুত্বপূর্ণ সেবা প্রয়োজন হয়। দেশে এবং দেশের বাহিরে অবস্থানরত জনগণের প্রয়োজনীয় ও গুরুত্বপূর্ণ এই সেবা গুলোকে গ্রাহকের কাছে খুব সহজে পৌঁছে দিতে “ইনোভেশন আইটি” “ডিজিটাল ইউনিয়ন ব্যবস্থাপনা” নামক একটি সফটওয়্যার তৈরী করেন। উক্ত সফটওয়্যারটি পূর্ণাঙ্গভাবে ইউনিয়ন পরিষদ ব্যবস্থাপনার কাজকে আরো সহজতর করে এক সাথে সকল সেবা প্রদানে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। এই সফটওয়্যার এর মাধ্যমে ইউনিয়নের যেকোন ধরনের তথ্য যেকোন সময়ে স্ব স্ব অবস্থানে থেকেই মন্ত্রনালয়, বিভাগীয় কমিশনার, জেলা প্রশাসক, উপ-পরিচালক, স্থানীয় সরকার, উপজেলা নির্বাহী অফিসারবৃন্দ ও স্ব স্ব পরিষদের চেয়ারম্যানগণ মনিটরিং করতে পারবেন। আমাদের “ডিজিটাল ইউনিয়ন ব্যবস্থাপনা” সফটওয়্যার এর মাধ্যমে নাগরিকদের কোন প্রকার ভোগান্তি ছাড়াই খুব সহজে নাগরিক সেবা গ্রহন করে থাকে। কোভিড কালীন সময়ে এই সুবিধা আরো জোড়ালো ভূমিকা রেখেছে। প্রত্যেক সনদ বারকোড সহ প্রদান করা হয় যাহা তথ্য নকল বা জালিয়াতি’র সম্ভাবনা একেবারেই নেই, যার ফলে যেকোন ধরনের অনুপ্রবেশকারীদের কে সনদ প্রদান থেকে খুব সহজে বঞ্চিত করা যায়। নাগরিকরা তাদের সেবা গ্রহনের জন্য যে কোন স্থান হতে অনলাইনে আবেদন করে সেবা গ্রহন নিশ্চিত করতে পারে। সনদ অনুযায়ী নির্ধারিত ফি অনলাইনে প্রদান ও সকল ট্রানজেকশন অনলাইনে হওয়ায় আর্থিক লেনদেনের হিসাব এবং অডিট সংক্রান্ত যাবতীয় রিপোর্টসহ স্বচ্ছতার সহিত স্বয়ংক্রিয় ভাবে সিস্টেমে সংরক্ষিত থাকে। ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে দ্রুত নাগরিক সেবা জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দেওয়ায় আমাদের অন্যতম লক্ষ্য। আমরা “ইনোভেশন আইটি দেশের বেশ কয়েকটি জেলায় ”ডিজিটাল ইউনিয়ন পরিষদ ব্যবস্থাপনা" ডিজিটালাইজেশন করে আসতেছি।

মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন





ডাউনলোড করতে গুগল প্লেতে ক্লিক করুন